টাঙ্গাইলে কবিরাজ মাসুদ মিয়ার তৈরী ডায়াবেটিসের ওষুধ খেয়ে সুস্থ্য আছেন যারা

0

নিজস্ব প্রতিবেদক.
গাছ-গাছরা দিয়ে তৈরী করা ওষুধ খেয়ে স্থায়ীভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে চলে আসার দাবি করেছেন কবিরাজ ও রোগীরা। এতে করে Exif_JPEG_420ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের এ ওষুধ খাওয়ার প্রবনতা বাড়ছে। স্থায়ীভাবে ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে টাঙ্গাইলের মাসুদ মিয়ার কাগমারী কলেজ মোড়স্থ বাড়িতে দুরদুরান্ত থেকে ডায়াবেটিস রোগীরা ভীড় করছেন।
সরেজমিনে কবিরাজ মাসুদ মিয়ার সাথে কথা বলে জানা যায়, ২১ দিনের ওষুধ খেয়ে বর্তমানে ভাল আছেন সৈয়দপুরের সুনামগঞ্জের কাজীবাড়ি গ্রামের সৈয়দ হুসবানুর রহমান (০১৭১৫৬৪২১০৩)। এবং একই উপজেলার সৈয়দ আহম্মদ আলী। ৮৪দিনের ওষুধ খেয়ে বর্তমানে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রয়েছে ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়ার বিশ্বজিত (০১৭১০৬৬২৮৯০),  ঢাকা মীরপুরের মো. মনির হোসেন (০১৯২৩৫৪২৩৫৪)। ভোলা জেলার চরফেশনের মো. মাসুদ রানা (০১৭১৫২৭৫৩৫৫), ঢাকার আবুল হোসেন (০১৯১২৮১২২৭০) ৬৩দিন ধরে ওষুধ সেবন করে ভাল আছেন। এছাড়াও ঢাকা মেরুল বাড্ডার মো. কবির হোসেন খান (০১৭৫৭৬০৩৬১৩) ১২৬ দিনের ওষুধ খেয়ে ভাল আছেন।
মাসুদ মিয়া (মোবাইল নং ০১৮৪৯১৩৮৫৫৮)জানান, বিভিন্ন প্রকার ওষুধী গাছ-গাছরা দিয়ে তৈরী করা বড়ি, ফাঁকি ওষুধ ও সরবত আকারে ২১দিনের কোর্স করে একটি ফাইল দেয়া হয়। ২১দিন পরপর ৫ ফাইল ওষুধ সেবন করলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। আর এই নিয়ন্ত্রণ চিরজীবন ধরে রাখতে শুধু পানির সাথে মধু মিশিয়ে খেতে হবে। এতেই স্থায়ীভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে থাকবে। তিনি জানান, ওষুধী গাছ-গাছরা চাহিদা অনুযায়ী সংগ্রহ করতে না পারায় কাক্ষিত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে পারছি না। তবে ওষুধী গাছ-গাছরার চাষ করতে পারলে সকল ডায়াবেটিস রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া সম্ভব হত।

Share.

About Author

Leave A Reply